Great Savings!! Buy More Save More Half Price Offers Buy1 Get1 Offers Voucher Offers Our Own Products Chocolates & Candies Stationery Gift & Toys

Multipurpose Box

Slideshow Gallery

1 / 6
2 / 6
3 / 6
4 / 6
6 / 6

Footwear
Cinque Terre Footwear
Mountains and fjords Footwear
Northern Lights Lady Finger
Snowy Mountains

Multipurpose Box

জেনে নিন কোন ত্বকের জন্য কেমন সানস্ক্রিন উপযুক্ত

কোন ত্বকের জন্য কেমন সানস্ক্রিন উপযুক্ত

সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন নিজের ত্বক অনুযায়ী


কোন ত্বকের জন্য কেমন সানস্ক্রিন দরকার জেনে নিন -
রোদের মাত্রা চড়চড় করে বেড়েই চলেছে গরমকাল পড়তে না পড়তেই। বাড়ি থেকে বেরিয়েই ঝলসে যাওয়ার মতো রোদ উঠতে শুরু করেছে এখন থেকেই। সাথে শ্রাবণ-ভাদ্র মাসের ঝিরিঝিরি বৃষ্টি আর শুষ্ক হাওয়া আপনার ত্বক-কে করে তুলছে আরো মলিন। এসময়ে যে জিনিসের ওপর আমরা সবচেয়ে বেশি নির্ভরশীল হয়ে পড়ি, এমন একটি প্রসাধনী হল - সানস্ক্রিন।

কিন্তু যেকোনো সানস্ক্রিন ব্যবহার করলেই তো হবে না, জানতে হবে আপনার ত্বকের ধরণ অনুযায়ী কোন সানস্ক্রিনটি ব্যবহার করবেন। নইলে দামি কোম্পানির সানস্ক্রিন ব্যবহার করলেও ট্যানের সমস্যা থেকে মুক্তি মিলবে না।

কোন ত্বকের জন্য কেমন সানস্ক্রিন জরুরি, তা আমাদের অনেকেরই সঠিকভাবে জানা নেই। অথচ আপনার ত্বক অনুযায়ী সঠিক সানস্ক্রিনটি ব্যবহার না করলে উপকারের থেকে অপকারের মাত্রা বাড়তে পারে আপনার ত্বকে। তাই জেনে নেওয়া যাক, কোন ত্বকের জন্য কেমন সানস্ক্রিন উপযুক্ত -

ত্বকের ধরন বুঝে সানস্ক্রিন :

১) সেনসিটিভ স্কিন বা সংবেদনশীল ত্বক - যে সমস্ত সানস্ক্রিনে প্যারাবেন কিংবা অক্সিবেনজোন জাতীয় কেমিক্যাল রয়েছে, তা সেনসিটিভ স্কিন বা সংবেদনশীল ত্বকের জন্য খুবই ক্ষতিকর। যদি আপনার ত্বক সংবেদনশীল হয়, সে ক্ষেত্রে প্যারাবেন বা অক্সিবেনজোন যুক্ত সানস্ক্রিন এড়িয়ে চলুন। এই ধরনের সানস্ক্রিন ব্যবহার করলে ত্বকে র‌্যাশ দেখা দিতে পারে। টাইটানিয়াম ডাইঅক্সাইড বা জিঙ্ক অক্সাইড জাতীয় উপাদান থাকা সানস্ক্রিন সেনসিটিভ স্কিন বা সংবেদনশীল ত্বকের জন্য উপকারী। সূর্যের তাপ থেকে ত্বককে রক্ষা করে এই উপাদানগুলি।

২) অ্যাকনে যুক্ত স্কিন - ত্বকের উপর হওয়া ব্ল্যাকহেডস, হোয়াইটহেডস, ব্রণ বা পুঁজ ভর্তি ছোট ছোট সিস্টকে একত্রে অ্যাকনে বলে। যাদের ত্বকে অ্যাকনের সমস্যা রয়েছে গরম বাড়লে তাদের সমস্যা আরও বেড়ে যায়। এ ক্ষেত্রে যেকোন রাসায়নিক মিশ্রিত, কৃত্রিম সুগন্ধি যুক্ত বা তেলতেলে সানস্ক্রিন এড়িয়ে চলুন।

৩) অয়েলি স্কিন বা তৈলাক্ত ত্বক - যাদের অয়েলি স্কিন বা তৈলাক্ত ত্বক, তারা এমন সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন যা ত্বকের আদ্রতা বজায় রাখার সঙ্গে সঙ্গে ত্বককে রাখবে তেল মুক্ত। তৈলাক্ত ত্বকে ব্রণ বা ফুসকুড়ির সমস্যা হতে পারে। তাই সানস্ক্রিন লোশন বা স্প্রে ব্যবহার করুন।

৪) ড্রাই স্কিন বা শুষ্ক ত্বক - শুষ্ক এবং রুক্ষ ত্বকের জন্যও আলাদা ধরণের সানস্ক্রিন ব্যবহার করার প্রয়োজন রয়েছে। রুক্ষ ত্বকে সাধারণ সানস্ক্রিন ব্যবহার করলে ত্বক আরও বেশি শুষ্ক এবং রুক্ষ হয়ে পরে। যাদের ড্রাই স্কিন বা শুষ্ক ত্বক, তাদের অবশ্যই ব্যবহার করতে হবে ময়শ্চারাইজিং সানস্ক্রিন। যাতে আপনার ত্বকের খসখসে ভাব দূর করে প্রাণবন্ত রাখতে সাহায্য করে। এই ধরনের সানস্ক্রিন ত্বকের আদ্রতা বজায় রাখতে সাহায্য করে। তাই রুক্ষ এবং শুষ্ক ত্বকের জন্য ময়েশ্চারাইজার সমৃদ্ধ সানস্ক্রিন বাছাই করতে হবে। একই সাথে এসপিএফ ৩০ মাত্রার অধিক সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন।

৫) ফর্সা ত্বকের জন্য - ত্বকের রক্ষার জন্য ন্যূনতম এসপিএফ ৩০ প্রয়োজন। আপনার ত্বকের রং উজ্জ্বল বা ফর্সা হলে উচ্চমানের SPF৫০+ যুক্ত সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন। যাতে ত্বকের PH লেভেল বজায় থাকে, সঙ্গে সূর্যের অতিবেগুনী রশ্মির হাত থেকেও রক্ষা পাওয়া যায়।

৬) শ্যামলা ত্বকের জন্য -  ত্বককে সূর্যের তাপ থেকে রক্ষা করার জন্য যাদের শ্যামলা ত্বক, তারা অতি অবশ্যই সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন।
 

যেসব বিষয়ে খেয়াল রাখবেন

১) শুধু গরমেই ইউজ করতে হয় এমনটা নয়। সানস্ক্রিন সব ওয়েদারেই ব্যবহার করা উচিত। 

২) খেয়াল রাখবেন আপনার ব্যবহৃত পণ্যটি ডেট এক্সপায়ার্ড হয়ে গিয়েছে কিনা। ডেট এক্সপায়ার্ড হয়ে গেলে সেটা ব্যবহার করবেন না।

৩) আপনার ত্বকের ধরণ অনুযায়ী UVA ও UVB দুটো থেকেই স্কিনকে সুরক্ষিত রাখবে এমন সানস্ক্রিন ব্যবহার করবেন। 

৪) স্কিন টাইপ ও কনসার্ন বুঝে সানস্ক্রিন সিলেক্ট করবেন। মিনারেল সমৃদ্ধ সানস্ক্রিনে জিংক অক্সাইড অথবা টাইটেনিয়াম ডাই অক্সাইড থাকে, যেটা সান প্রোটেকশনের ক্ষেত্রে খুবই ভালো কাজ করে।

৫) বাসায় ফিরে অবশ্যই ভালো মানের ফেইসওয়াশ ব্যবহার করে ডাবল ক্লেনজিং করবেন।

এখন থেকে আপনাকে ত্বকের ধরন অনুযায়ী উপযোগী সানস্ক্রিন নির্বাচনে আর কোন দ্বিধাদ্বন্দ্বে পরতে হবে না আশাকরি, পাশাপাশি পরিচিত স্বজনদেরও সঠিক তথ্যসহ পরামর্শ দিতে পারবেন।

part 2

জেনে নিন কোন ত্বকের জন্য কেমন ফেইসওয়াশ উপযুক্ত

কোন ধরনের ফেইসওয়াশ আপনার জন্য

ফেইসওয়াশ ব্যবহার করুন নিজের ত্বক অনুযায়ী

 


কোন ত্বকের জন্য কেমন ফেইসওয়াশ দরকার জেনে নিন -
 

এসেছে তীব্র গরমের ঋতু। প্রায় মাস ছয়েক নানা ধরনের আবহাওয়ার সাথে মানিয়ে নিতে হবে আপনার ত্বককে। ত্বকের যত্নে তাই আপনাকে হতে হবে আরো যত্নশীল। আমাদের প্রত্যেকেরই ত্বকের ধরন আলাদা এবং ত্বক নিয়ে কম বেশি প্রত্যেকেরই কিছু না কিছু সমস্যা রয়েছে।

ত্বক পরিষ্কার রাখতে, বাইরে থেকে বাড়ি ফিরে অথবা নিজের রুটিন অনুযায়ী মুখ ধুতে আমরা প্রায় সকলেই ফেইসওয়াশ ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু কোন ত্বকের যত্নে কেমন ফেইসওয়াশ ব্যবহার করতে হবে তা জানেন কি?

 

প্রথমেই নিজের ত্বকের ধরন সম্পর্কে একটা ধারণা করে নেওয়া প্রয়োজন। 

কারো তৈলাক্ত, কারো রুক্ষ, কারো আবার সেনসিটিভ কিংবা নরমাল। প্রত্যেক ত্বকেরই রয়েছে ভিন্ন সমস্যা।

আপনার ত্বকের ধরন অনুযায়ী ফেইসওয়াশ ব্যবহার না করলে ত্বকের আর্দ্রতা কমে গিয়ে নানা ধরনের ত্বকের রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা যেমন থাকে, তেমনই সৌন্দর্য কমে যাওয়ার মতো ঘটনাও ঘটতে পারে। তাই কেনার আগে সব দিকে নজর রেখে এসকল প্রসাধনী ব্যবহার করা বুদ্ধিমানের কাজ।

 

তবে চলুন জেনে নেওয়া যাক কোন ত্বকের জন্য কোন ফেইসওয়াশ উপযোগী -

 

তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে - অনেকের ত্বকে একটুতেই তেলতেলে ভাব দেখা যায়, যার ফলে অতি সহজেই ত্বকে ধুলোবালি লেগে যায়। সেক্ষেত্রে  তাদের দিনে দুই থেকে তিন বার ফেইসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে নিতে হবে। এর পাশাপাশি তৈলাক্ত ত্বকে ভালো উপকার পেতে টোনার ব্যবহার করতে পারেন। তবে ফেইসওয়াশ বা টোনার ব্যবহারের আগে দেখে নিন তাতে মধু অথবা শসাযুক্ত আছে কি না। কারণ মধু এবং শসাযুক্ত টোনার বা ফেইসওয়াশ এই ধরনের ত্বকের জন্য বেশ উপকারী। 

এছাড়াও যেকোনো ফোমিং ফেইসওয়াশ ত্বক থেকে অতিরিক্ত তেলতেলে ভাব দূর করতে সাহায্য করে থাকে। চাইলে টোনার হিসেবে মধু কিংবা শসার রস করে তুলা দিয়ে মুখে লাগিয়ে নিতে পারেন। এতে ভালো ফল পাবেন, সাথে আপনার ত্বক হবে সতেজ ও প্রাণবন্ত।

 

মুখে তৈলাক্তভাব যদি বেশি থাকে তাহলে খেয়াল রাখবেন আপনার ফেইসওয়াশ যেন একেবারে তেল মুক্ত হয়৷ পাশাপাশি কিছু ফেইসওয়াশে থাকে ব্রনের সমস্যা দূর করার উপাদানও৷ তৈলাক্ত ত্বকের ক্ষেত্রে এসকল ফেইসওয়াশ বেশ উপকারী। 

মুখ পরিষ্কার হওয়ার পর খেয়াল রাখবেন, যে ময়েশ্চারাইজার ক্রিম ব্যবহার করছেন তাতে যেন তেল না থাকে। এক্ষেত্রে তৈলাক্ত ত্বকের জন্য ‘অয়েল ফ্রি’ ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে পারেন।

 

শুষ্ক ত্বকের যত্নে - শুষ্ক ত্বকের জন্য ফেইসওয়াশে কিছু উপাদান থাকা প্রয়োজন যা মুখের আর্দ্রতা ধরে রাখতে সাহায্য করবে। যাদের ত্বক শুষ্ক তারা গরমকালের তুলনায় শীতকালে ত্বকের যত্ন নেওয়ার প্রয়োজন বেশি অনুভব করেন। কারণ এই সময়ে ত্বক আরও শুষ্ক ও রুক্ষ হয়ে পড়ে। তাই এসকল ত্বকের যত্নে ফেইসওয়াশে থাকা চাই গ্লিসারিন এবং ভিটামিন ই৷ 

এক্ষেত্রে বেছে নিতে পারেন নিম, হলুদ, ল্যাভেন্ডার কিংবা এলোভেরা সমৃদ্ধ ফেইসওয়াশ। মিল্ক বেইজ ফেইসওয়াশও শুষ্ক ত্বকের জন্য যথোপযোগী। এতে ত্বকের আর্দ্রতার সমতা বজায় থাকবে। এর পাশাপাশি রোজ ওয়াটারসমৃদ্ধ টোনার শুষ্ক ত্বকের জন্য খুবই কার্যকরী। এমন ত্বকে বাটারযুক্ত ক্রিম ময়েশ্চারাইজার হিসেবে ব্যবহার করা ভালো।

 

সেনসিটিভ/সংবেদনশীল ত্বকের যত্নে - সেনসিটিভ বা সংবেদনশীল ত্বকের যত্নে ফেইসওয়াশ নির্বাচনের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত সচেতন হতে হবে। খেয়াল রাখবেন আপনার ফেইসওয়াশের উপাদানে যেন কোনো ক্ষার, অ্যালকোহল, সালফেট এবং কৃত্তিম মিনারেল যুক্ত উপাদান না থাকে৷ কারণ এই ধরনের ত্বকে খুব সহজেই অ্যালার্জি হওয়ার সম্ভবনা থাকে৷ 

তাই অতিরিক্ত সুগন্ধিমুক্ত এবং অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল উপাদান সমৃদ্ধ ফেইসওয়াশ সেনসিটিভ/সংবেদনশীল ত্বকের জন্য খুবই যথোপযোগী।

 

মিশ্র/নরমাল ত্বকের যত্নে - বাকিদের তুলনায় অনায়াসে এই ধরনের ত্বকের যত্ন নিতে পারবেন। অলস্কিন টাইপ, আয়ূর্বেদিক কিংবা ন্যাচারাল ফেইসওয়াশ বেছে নিতে পারেন মিশ্র/নরমাল ত্বকের যত্নে। এসব ফেইসওয়াশে ক্ষার এবং আর্দ্রতার একটি সুন্দর সমতা পাওয়া যায়। 

এছাড়া শসা ও গোলাপ যুক্ত উপকরণে তৈরি প্রসাধনী পণ্যসমূহ ব্যবহারে এই ধরনের ত্বকের সজীবতা আরো বৃদ্ধি পায়।

 

ত্বকের যত্নে উপযোগী ফেইসওয়াশ বাছাইতে থাকুন সচেতন। ত্বকে কোন প্রকার ক্ষত কিংবা অতিরিক্ত ব্রণ থাকলে যেকোনো  প্রসাধনী ব্যবহারের পূর্বে অবশ্যই ত্বকের ডাক্তারের শরণাপন্ন হন।

 

পণ্য ক্রয়ের সময় উৎপাদন তারিখ এবং মেয়াদোত্তীর্ণ তারিখ সঠিকভাবে দেখে নিবেন এবং যত্রতত্র জায়গা থেকে ত্বকের প্রসাধনী সামগ্রী ক্রয়ে সতর্ক থাকুন। সেক্ষেত্রে আপনার হাতের নাগালে রয়েছে সুপারশপ স্বপ্ন। গ্রাহকদের চাহিদা অনুযায়ী নিশ্চিত সেবাদানে, প্রসিদ্ধ সব ব্র্যান্ডের আসল পণ্য অনুমোদিত সরবরাহকারীর কাছ থেকে সংগ্রহ করা হয় এবং  নিজস্ব ল্যাবে নিরীক্ষণের পরেই তা বাজারজাত করে স্বপ্ন। আপনার নিকটস্থ স্বপ্ন আউটলেটগুলোতে  নিজ ত্বকের ধরণ অনুযায়ী ফেইসওয়াশ পেতে অথবা সঠিক ফেইসওয়াশটি যাচাই করতে সহযোগীতা করবে আমাদের কর্মীরা। ঘরে বসেই পণ্য ডেলিভারি পেতে ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট www.shwapno.com 

এছাড়াও ফেইসওয়াশ ব্যবহারে কোনো সমস্যার সম্মুখীন হলে আমাদের ফেইসবুক ফ্যানপেইজে অথবা স্বপ্ন হেল্পসেন্টারে জানাতে পারেন। আমরা সর্বদা আপনাদের সেবায় নিয়োজিত আছি।

 

আশাকরি এখন থেকে আপনাকে ত্বকের ধরন অনুযায়ী উপযোগী ফেইসওয়াশ নির্বাচনে কোন অনিশ্চয়তায় ভুগতে হবে না, পাশাপাশি পরিচিত স্বজনদেরও সঠিক তথ্যসহ পরামর্শ দিতে পারবেন।